ঢাকা, ২৫ জুন, ২০২৪ || ১১ আষাঢ় ১৪৩১
Biz Barta :: বিজ বার্তা
Place your advertisement here

সিআইপি মর্যাদা পেলেন ১৩৭ ব্যবসায়ী

বিজবার্তা রিপোর্ট :

প্রকাশিত: ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮  


ঢাকা : ব্যবসায় বিশেষ অবদান রাখায় ২০১৬ সালের জন্য নির্বাচিত দেশের ১৩৭ ব্যবসায়ী কমার্শিয়ালি ইমপর্টেন্ট পারসন (সিআইপি) মর্যাদা পেয়েছেন। রফতানি বাণিজ্যে অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে তাদের এ মর্যাদা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া সিআইপি (বাণিজ্য) নির্বাচিত হয়েছেন ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর ৪১ পরিচালক।
মঙ্গলবার বিকালে রাজধানীর কারওয়ান বাজারের টিসিবি ভবন মিলনায়তনে আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের হাতে সিআইপি মর্যাদা তুলে দেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।


অনুষ্ঠানে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ব্যবসায়ীরা দেশ সামনের দিকে এগিয়ে নিচ্ছেন। ১৯৭২ সালে ২৫ পণ্যে রফতানি আয় ছিল মাত্র ৩৪৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। আর ২০১৭-১৮ অর্থবছরে রফতানি আয় হয়েছে ৪১ বিলিয়ন ডলার। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে আমাদের রফতানি টার্গেট ৪৪ বিলিয়ন। এ জন্য সরকার নতুন নতুন পণ্যও প্রণোদনা দিচ্ছে, যাতে রকমারি পণ্যের রফতানি বাড়ে। সরকার নতুন নতুন বাজার সৃষ্টির জন্যও ক্যাশ প্রণোদনা দিচ্ছে।


তিনি বলেন, দেশ বর্তমানে দুই ভাগে বিভক্ত। এর মধ্যে একটি স্বাধীনতার চেতনার মূল্যবোধে বিশ্বাসী শক্তি। আর তাদের নেতৃত্বে দেশ সব খাতে এগিয়ে যাচ্ছে। এখন আপনার বিবেক ও বিবেচনা দিয়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নিন।


অনুষ্ঠানে বাণিজ্য সচিব মো. মফিজুল ইসলামসহ ইপিবি ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের সিআইপি নীতিমালা অনুসারে ২০১৬ সালে ১৯ খাতের ব্যবসায়ীদের মর্যাদা প্রদান করা হয়। এর মধ্যে রয়েছে কাঁচা পাট, পাটজাত দ্রব্য, চামড়াজাত দ্রব্য, হিমায়িত খাদ্য, ওভেন গার্মেন্ট, কৃষিজাত পণ্য, অ্যাগ্রো প্রসেসিং, ফার্মাসিউটিক্যালস, হস্তশিল্পজাত দ্রব্য, প্লাস্টিকজাত পণ্য, ওভেন ও নিটওয়্যার পোশাক, টেক্সটাইলসহ বিভিন্ন রফতানি পণ্য।
সিআইপি মর্যাদাধারী ব্যক্তিরা সচিবালয়ে প্রবেশে বিশেষ পাস, ব্যবসা-সংক্রান্ত ভ্রমণে বিমান, রেল, সড়ক ও নৌপথে সরকারি যানবাহনে সংরক্ষিত আসনে অগ্রাধিকার, বিমানবন্দরে ভিআইপি লাউঞ্জ-২ ব্যবহার এবং ব্যবসায়িক কাজে বিদেশ ভ্রমণের ভিসাপ্রাপ্তিতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে লেটার অব ইন্ট্রোডাকশন ইস্যু সুবিধা পাবেন। এছাড়া স্ত্রী ও ছেলেমেয়েসহ নিজেদের চিকিৎসার জন্য সরকারি হাসপাতালে কেবিন সুবিধার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবেন তারা।


সিআইপি (রফতানি) কার্ডের আওতায় তারা এক বছর এসব সুবিধা পাবেন। পাশাপাশি পরবর্তী সিআইপি ঘোষণা না হওয়া পর্যন্ত এ সুবিধা বহাল থাকবে। অন্যদিকে বাণিজ্য সংগঠনে পদ বহাল থাকা বা পরবর্তী সিআইপি ঘোষণার আগ পর্যন্ত সুবিধা পাবেন সিআইপি (বাণিজ্য) নির্বাচিত ব্যক্তিরা।

 


Place your advertisement here
Place your advertisement here
Place your advertisement here
Place your advertisement here